ঢাকা১৬ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

পলাশবাড়ীর হরিনাথপুর ইউনিয়ন পরিষদে জন্ম নিবন্ধনে অতিরিক্ত অর্থ আদায়

বার্তা বিভাগ
নভেম্বর ২৮, ২০২৩ ১০:১৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

আনোয়ার হোসেন, গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার হরিনাথপুর ইউনিয়নে জন্ম নিবন্ধনে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগ উঠেছে ইউপি সচিব শাহানা আক্তারের বিরুদ্ধে। চাহিদামত অর্থ না দিলে হয়রানী করা হয় মর্মে অভিযোগ সেবা গ্রহিতাদের।

জানা গেছে, জন্ম নিবন্ধনের মাধ্যমে একটি শিশু প্রথম নাগরিকত্বও লাভ করে। জন্মসনদ অত্যাবশ্যকীয় করার লক্ষ্যে সরকার নতুন করে জন্ম ও মৃত্যুনিবন্ধন আইন ২০০৪ প্রণয়ন করে। জাতীয় পরিকল্পনা প্রণয়ন, সুশাসন প্রতিষ্ঠা, শিশু অধিকার সংরক্ষণ নিশ্চিত করতে আইনটি ৩ জুলাই ২০০৬ থেকে কার্যকর করা হয়েছে। জন্ম সনদ হলো একজন মানুষের জন্ম, বয়স, পরিচয় ও নাগরিকত্বের প্রমাণ। রাষ্ট্রের স্বীকৃত নাগরিকের মর্যাদা ও সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা ভোগ করতে হলে জন্ম নিবন্ধন সনদ প্রদর্শন করা বাধ্যতামূলক।
পাসপোর্ট ইস্যু, বিবাহ নিবন্ধন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি, সরকারি-বেসরকারি বা স্বায়ত্বশাসিত সংস্থায় নিয়োগদান, ড্রাইভিং লাইসেন্স ইস্যু, ভোটার তালিকা প্রণয়ন, জমি রেজিষ্ট্রেশন, ব্যাংক হিসাব খোলা, আমদানি ও রপ্তানী লাইসেন্স প্রাপ্তি, গ্যাস, পানি, টেলিফোন ও বিদ্যুৎ সংযোগ প্রাপ্তিসহ বিভিন্ন
কাজে জন্ম নিবন্ধন সনদের প্রয়োজন।

সূত্র বলছে, শিশুর জন্মের ৪৫ দিনের মধ্যে কেউ জন্মনিবন্ধন সনদ নিলে তা বিনা মূল্যে করে দেওয়া হয়। ৪৬ দিন থেকে ৫ বছর পর্যন্ত বিলম্ব নিবন্ধন ফি ২৫ টাকা। ৫ বছর পর করলে ফি ৫০ টাকা।

অথচ সেবাগ্রহীতাদের অভিযোগ, হরিনাথপুর ইউনিয়ন পরিষদে নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে ইউপি সচিব শাহানা আক্তার প্রতি জন্ম নিবন্ধনে ৫০ টাকার স্থলে ২’শ টাকা করে নেন। এমন খবরের ভিত্তিতে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় নিবন্ধন নিতে আসা সেবা গ্রহিতাদের ভীড়। এসময় লাইজু বেগম নামের একজন সেবাগ্রহিতা জানান, ৫ জন শিশুর জন্ম নিবন্ধনের জন্য ইউপি সচিব শাহানা আক্তার জনপ্রতি ২’শ টাকা করে মোট ১ হাজার টাকার দাবী করেন। ৮’শ টাকা দেয়ার পর ২’শ টাকা না দেয়ায় তাকে ১৫ দিন ধরে হয়রানী করে আসছে। শুধু লাইজু বেগম নন এমন অভিযোগ জন্ম নিবন্ধন
সনদ নিতে আসা অনেকেরই।
এ বিষয়ে সচিব শাহানা আক্তারের সাথে কথা হলে জানান, চেয়ারম্যানের সিদ্ধান্তে নেয়া হচ্ছে। এখানে আমার বলার কিছু নেই। আপনারা লিখতে পারেন।
ইউপি চেয়ারম্যান কবির হোসাইন জাহাঙ্গীর জানান, প্রতি নিবন্ধনে ১’শ ৫০ টাকা পর্যন্ত নেয়ার কথা বলা হয়েছে। এর অধিক টাকা নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়নি।

ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য তোতা মিয়া, ৮নং ওয়ার্ড সদস্য জিয়াউর রহমান, ৯নং ওয়ার্ড সদস্য মোজাহার আলী জানান, আমরা বার বার বলার পরও এর সংশোধ হচ্ছে না। চেয়ারম্যান একক সিদ্ধান্তে সচিব শাহানা আক্তারকে দিয়ে এসব করছেন। এমনকি জন্ম নিবন্ধনের আবেদন পত্রেও আর আমাদের স্বাক্ষর লাগে না।

পলাশবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ কামরুল হাসান জানান, বিষয়টি দেখতেছি।
গাইবান্ধা স্থানীয় শাখার উপ-পরিচালক (উপসচিব)
শরিফুল ইসলাম জানান, অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে হয়। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো। বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বে-আইনি। যোগাযোগ: হটলাইন: +8801602122404 ,  +8801746765793 (Whatsapp), ই-মেইল: [email protected]