ঢাকা১৩ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

লালমনিরহাট দহগ্রামের গুচ্ছগ্রামে ধস, চলে গেছে ৮২ টি অসহায় পরিবার

বার্তা বিভাগ
মে ৯, ২০২৩ ৪:০৯ অপরাহ্ণ
Link Copied!

মো: রবিউল ইসলাম, জেলা প্রতিনিধি লালমনিরহাট:

ভূমিহীন, গৃহহীন, নদী ভাঙনের শিকার দরিদ্র পরিবারের জন্য নির্মিত গুচ্ছগ্রামে ধসের কারণে ঘরের মাটি সরে গিয়ে দুরবস্থা এবং চলাচলের একমাত্র রাস্তা বেহাল হওয়ায় লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার দহগ্রাম গুচ্ছগ্রাম থেকে চলে গেছে ৮২ টি পরিবার। নানা প্রতিকূলতার মধ্যে টিকে আছে ৪৮ পরিবার।

ভারতের অভ্যন্তরে অবস্থিত বাংলাদেশি আলোচিত ভূ-খন্ড দহগ্রাম ইউনিয়ন। এ ইউনিয়নের তিস্তা নদীর তীরে ২০১৮ সালে নির্মিত করা হয় দহগ্রাম-১ গুচ্ছগ্রাম। তিনধাপে এখানে ১৩০ টি বসতঘর নির্মাণ করে পর্যায়ক্রমে ভূমিহীন, গৃহহীন, নদী ভাঙনের শিকার দরিদ্র পরিবার সমূহকে বরাদ্দ দেওয়া হয়।

কিন্তু গত ২-৩ বছরের বর্ষা ও বন্যায় এ গুচ্ছগ্রামের ঘরের মাটি ও মেঝে ধসে বসবাসের অনুপযোগী হয়ে পরে। এখানকার বাসিন্দারা অস্বচ্ছল হওয়ায় ধসে যাওয়া ঘর মেরামত করতে না পেয়ের পরিবার নিয়ে চলে যায়। অপরদিকে এ গুচ্ছগ্রামে চলাচলের একমাত্র সড়কটি খানা খন্দে ভরা। ধুলো-বালির সড়ক হওয়ায় যাতায়াতে দুর্ভোগের শিকার হয়েও গুচ্ছগ্রাম ছেড়ে চলে যাচ্ছেন অনেকে। বর্ষা মৌসুমে তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধি পেলে এখানকার বাসিন্দাদের দুর্ভোগের শেষ থাকে না।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সরকারের ভূমি মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে ওই ইউনিয়নের তিস্তা নদী অববাহিকার বড়বাড়ি এলাকায় ২০১৮ সালে গুচ্ছগ্রাম ২য় পর্যায়ে ক্লাইমেট ভিকটিমস্ রিহ্যাবিলিটেশন প্রজেক্ট (সিভিআরপি) প্রকল্পের আওতায় তিনধাপে ১৩০ টি বসতবাড়ি নির্মাণ করা হয়। বাড়ি গুলোতে ভূমিহীন, গৃহহীন, নদী ভাঙনের শিকার দরিদ্র পরিবারকে খাস জমিতে পূর্ণবাসনের লক্ষ্যে সরকার এ প্রকল্প বাস্তবায়নে উদ্যোগ নেয়। নির্মাণের পর থেকে এ গুচ্ছগ্রামে পূর্ণবাসিত পরিবার গুলো যাতায়াতের সড়কের কারণে নিত্য দুর্ভোগ পরে। কিছুদিন পর তিস্তা নদীর বন্যা ও বৃষ্টিতে এখানকার মাটি ধসে যায়। এতে বেশির ভাগ ঘরের মেঝে, স্যানিটেশন ব্যবস্থা নষ্ট হয়ে এখানে বসবাসে কষ্টে পরে বাসিন্দারা। পাশাপাশি এ গুচ্ছগ্রামে যেতে দহগ্রামের নয়ারহাটগামী পাকা রাস্তা হতে প্রায় দুই কিলোমিটার কাঁচা সড়কটি বৃষ্টি, বন্যা, খড়া/শুষ্ক সব মৌসুমে চলাচলে অনুপযোগী। সড়কে থাকা এটি কালভার্টও ঝুকিপূর্ণ হয়ে রয়েছে। এতে বেশ কষ্টে চলাচল করে এখানকার বাসিন্দারা। গুচ্ছগ্রামটিতে ঘর বরাদ্দ পাওয়া পরিবার গুলো অস্বচ্ছল ও দিনমজুর হওয়ায় কাজের সন্ধানে যাওয়া-আসায়ও দুর্ভোগ পোহাতে হয় বাসিন্দাদের। দীর্ঘদিনেও একমাত্র চলাচলের সড়টির সংস্কার না হওয়ায় দুঃখ প্রকাশ করেন এখানকার বাসিন্দারা। এখানে বসবাসরত পরিবার গুলোর সন্তানেরা পায়ে হেঁটে দূরের বিদ্যালয় ও মাদ্রাসায় পড়ালেখা করে। নানামুখী সমস্যার কারণে গুচ্ছগ্রামের বসতবাড়ি ছেড়ে অন্যত্র গেছে ৮২ টি অসহায় পরিবার।

দহগ্রাম গুচ্ছগ্রামের বাসিন্দা জয়নাল আবেদীন (৪৮) বলেন, নদী ভাঙনের শিকার হয়ে জমি, ‘বসতভিটা হারিয়ে এ গুচ্ছগ্রামে আসছি। এখানে থাকা কষ্টকর, কাম-কাজের জন্য এখানকার সড়ক দিয়ে বাইরে যাওয়া-আসা করা যায়না। এখানকার ঘর গুলোর মাটি ধসে যাওয়ায় অনেকে চলে গেছে।’

এ গুচ্ছগ্রামের ১১ নম্বর ঘরের বাসিন্দা জুলেখা বেগম (৩০) বলেন, ‘কাজ না করলে তো আমাদের ভাত জোটেনা। গুচ্ছগ্রাম থেকে যাওয়া-আসার রাস্তার খুব সমস্যা। মাটে সরে গিয়ে ঘর গুলোতেও থাকা যায়না। এজন্য অনেকে চলে গেছে।’

দহগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান বলেন, ‘দহগ্রাম গুচ্ছগ্রামের সড়কের কারণে এখানে বসবাসকারীরা খুব কষ্টে আছে। অনেকে চলে গেছে। সড়কটি মেরামত করা জরুরী। আমি এ ব্যাপারে ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলেছি।’

এ ব্যাপারে পাটগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মাহমুদুল হাসান বলেন, ‘সড়কের ব্যাপারে শুনেছি। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করা হবে। গুচ্ছগ্রামের বাসিন্দাদের অনেকের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হওয়ায় অনেকে বাইরে চলে গেছে।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে হয়। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো। বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বে-আইনি। যোগাযোগ: হটলাইন: +8801602122404 ,  +8801746765793 (Whatsapp), ই-মেইল: [email protected]