ঢাকা২৪শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

রাজবাড়ীতে অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নেই শহীদ মিনার

বার্তা বিভাগ
এপ্রিল ২৯, ২০২৩ ১১:২৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

আল-আমিন খোকন, রাজবাড়ী জেলা প্রতিনিধি:

ভাষা আন্দোলনের স্মৃতিস্তম্ভ শহীদ মিনার। কিন্তু রাজবাড়ীর ৮০ শতাংশ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নেই শ্রদ্ধা জানানোর সেই শহীদ মিনার। ফলে বাস্তবমুখী শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীরা বলছে, ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসসহ অন্য জাতীয় দিবসে দূরে গিয়ে শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে হয়। ইচ্ছা থাকলেও প্রতিবন্ধীসহ অনেক শিক্ষার্থী যেতে পারে না। ফলে নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নির্মাণের দাবি শিক্ষার্থীদের।

সুধিজনদের দাবি, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার থাকলে ছেলে-মেয়েরা ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস সর্ম্পকে যেমন জানতো, তেমনি বাস্তবধর্মী শিক্ষা পেতো। শহীদদের প্রতি বেড়ে যেতো তাদের শ্রদ্ধা ও ভক্তি। ফলে প্রতিটি বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার থাকা জরুরি। শিক্ষকরা বলেন, শিক্ষার জন্য বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার খুবই প্রয়োজন। কিন্তু এখন পর্যন্ত বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার নির্মিত হয়নি। তবে ব্যক্তিগতভাবে নির্মাণের চেষ্টা চলছে। শিক্ষা কর্মকর্তারা বলছেন, যে সব বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার নাই, পরিদর্শনের সময় সে সব বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার নির্মাণের জন্য বলা হয়। শহীদ মিনার থাকলে বিদ্যালয়টি পূর্ণাঙ্গ রূপ পায়। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, রাজবাড়ীর প্রাথমিক, মাধ্যমিক, কলেজ, মাদরাসা ও কারিগরি প্রতিষ্ঠান মিলে ৭৩৮টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আছে।

এরমধ্যে মাধ্যমিক, কলেজ, মাদরাসা ও কারিগরির ২৫৭ প্রতিষ্ঠানে মধ্যে শহীদ মিনার আছে ৯৪ টিতে। আর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪৮১টির মধ্যে শহীদ মিনার আছে মাত্র ৫৬ টিতে। ফলে এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অস্থায়ীভাবে শহীদ মিনার নির্মাণ অথবা অন্য কোনো প্রতিষ্ঠানের শহীদ মিনারে গিয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন জাতীয় দিবস পালন করে। শেরে বাংলা বালিকা ও কাজী হেদায়েত হোসেন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা জানায়, ভাষা শহীদদের সম্পর্কে তারা বইয়ের মাধ্যমে জেনেছে। ওই শহীদদের জন্যই বাংলা ভাষা পাওয়া। সেই ভাষায় সুন্দরভাবে কথা বলছে সবাই। দেশকে উন্নত করতে হলে আগে ভাষাকে উন্নত করতে হবে। নিজেদের বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার থাকলে শ্রদ্ধা জানানোর পাশাপাশি আরও অনেক কিছু শিখা যেতো। শ্রদ্ধা জানাতে দূরে যেতে হতো না।

সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও সাবেক জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা সৈয়দ সিদ্দিকুর রহমানসহ কয়েকজন বলেন, প্রতিটি বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার থাকবে এমন নির্দেশনা থাকলেও বাস্তবে অনেক বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার নাই। সব বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার থাকলে শিক্ষার্থীরা ভাষা আন্দোলন ও শহীদদের সর্ম্পকে জানতে পারতো।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে হয়। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো। বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বে-আইনি। যোগাযোগ: হটলাইন: +8801602122404 ,  +8801746765793 (Whatsapp), ই-মেইল: [email protected]